জুনায়েদ আহমেদ পলক এর পরিচয়, শিক্ষাগত যোগ্যতা, পরিবার, রাজনৈতিক জীবন

প্রিয় প্রাঠক বৃন্দ, আমরা অনেক সময় অনেক ব্যক্তিদের সম্পর্কে জানতে আগ্রহী। কখনো বিভিন্ন সেলিব্রেটি সম্পর্কে জানতে আগ্রহী আবার কখনো রাজনীতিবিদ সম্পর্কে জানতে আগ্রহী। তাইতো সকল ভিজিটরদের কথা চিন্তা করে আমাদের ওয়েবসাইটটিতে আমরা অনেক সময় সেলিব্রেটি অর্থাৎ অভিনেতাদের সম্পর্কে লিখেছি আবার কখনো বিশিষ্ট রাজনীতিবিদদের সম্পর্কে লিখেছি। তাই আশা করি আপনারা যে সকল সেলিব্রেটি বা জনপ্রিয় ব্যক্তিদের জীবনী সংগ্রহ করতে যাচ্ছেন বা তাদের জীবনী থেকে নানা রকম তথ্য সংগ্রহ করতে যাচ্ছেন তারা আমাদের ওয়েবসাইটটি থেকে সকলের জীবনী সংগ্রহ করতে সক্ষম হবে। আজকে আমরা আপনাদের সামনে কথা বলতে যাচ্ছি 2019 সালের সাথে জানুয়ারি নির্বাচিত সরকারের সংসদ সদস্য এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ দায়িত্ব পালন করেছেন জুনায়েদ আহমেদ পলক।

আপনারা যারা জুনায়েদ আহমেদ পলক সম্পর্কে জানতে আগ্রহী বা জুনায়েদ আহমেদ পলকের জীবনী থেকে নেওয়া নানা রকম তথ্য সংগ্রহ করতে আগ্রহী তারা আমাদের এই নিবন্ধনটি মনোযোগ সহকারে দেখতে পারেন। বর্তমান সময়ের আলোচিত ব্যক্তি জুনায়েদ আহমেদ পলক জুনায়েদ আহমেদ পরক তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী হিসেবে বর্তমান দায়িত্ব পালন করে আসছে। চিনি তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করার পরে সাধারণ জনগণের পাশে যেভাবে দাঁড়িয়েছেন এবং সাধারণ জনগণের মতামতের উপর ভিত্তি করে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। এই জনপ্রিয়তা দেখে এবং তার কার্যক্রম দেখে অনেকেই আছেন যারা মুগ্ধ হয়ে পড়েছেন এবং জুনায়েদ আহমেদ পলকের ভক্ত হয়ে উঠেছেন। তাই অনেকেই তার জীবনী থেকে নানা রকম তথ্য সংগ্রহ করতে আগ্রহী।

জুনায়েদ আহমেদ পলক জীবনী

তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলকের জীবনী থেকে নানারকম তথ্যগুলো সংস করে আপনাদের সামনে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করার চেষ্টা করলাম। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক জন্মগ্রহণ করেন ১৭ই মে ১৯৮০ সালে। বাংলাদেশী আইনজীবী এবং রাজনীতিবিদ হলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক। তিনি 2018 সালে ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনের রাজশাহী বিভাগের নাটোর জেলার সিংড়া উপজেলা থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ লীগের নির্বাচনে বাংলাদেশের সংস্কৃত সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন। এছাড়াও তিনি ২০১৯ সালে যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী বিভাগের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করা শুরু করেন।

জন্ম মে ১৭, ১৯৮০ (বয়স ৪৩)
নাটোর, বাংলাদেশ
নাগরিকত্ব বাংলাদেশ
জাতীয়তা বাংলাদেশী
রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
দাম্পত্য সঙ্গী আরিফা জেসমিন কনিকা
সন্তান
  • অপূর্ব
  • অর্জন
  • অনির্বাণ
পিতামাতা ফয়েজ উদ্দিন আহমেদ (বাবা)
শিক্ষা এমএসএস, এলএলবি
প্রাক্তন শিক্ষার্থী জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়
পেশা রাজনীতি
জীবিকা আইনজীবী

জুনায়েদ আহমেদ পলকের শিক্ষাগত যোগ্যতা

ঝিনাইদ আহমেদ পলকের প্রাথমিক জীবন ও শিক্ষা। যেহেতু তিনি একজন বাংলাদেশের যোগাযোগ ও প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী তাই তার শিক্ষাগত যোগ্যতা আমাদের জানা প্রয়োজন। বাংলাদেশের সর্বোচ্চ স্থানে যিনি বসে আছেন এবং বাংলাদেশের সকল পর্যায়ের দেখাশুনা করছেন, তাই তার শিক্ষাগত যোগ্যতা সম্পর্কে আমাদের বিশেষ ভাবেই তদারূপী করা প্রয়োজন এবং জানা প্রয়োজন। তাই অনেকেই আছেন যারা তার শিক্ষাগত যোগ্যতা অনুসন্ধান করে এজন্য আমরা আমাদের এই প্রতিবেদনটির মাধ্যমে সকল তথ্য তুলে ধরতে আগ্রহী। আমরা নিচে সুন্দরভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করব তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী অর্থাৎ জুনায়েদ আহমেদ পলকের শিক্ষাগত যোগ্যতা সম্পর্কে নানা রকম তথ্যগুলো।

১৯৮০ সালের ১৭ই মে বাংলাদেশ নাটোর জেলার সিংড়া উপজেলার জন্মগ্রহণ করেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক। তিনি 1995 সালে সিংড়া দমদমা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও ১৯৯৭ সালের রাজশাহী ওল্ড ডিগ্রী কলেজ বর্তমান রাজশাহী কলেজ নামে পরিচিত থেকে এইচএসসি পাস করেন। এরপরে তিনি ঢাকা কলেজ থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের স্নাতক কর এবং জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এলএলবি ডিগ্রী অর্জন করেন। বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইন পেশায় নিয়োজিত হন।

জুনায়েদ আহমেদ পলকের পরিবার

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলকের পরিদ্বার সম্পর্কে জানতে অনেকের আগ্রহী। এত বড় একটি ভালো পর্যায়ে যিনি রয়েছেন এবং তার কার্যক্রম গুলো সোশ্যাল মিডিয়ায় সকলের কাছে পৌঁছায় এবং সকলেই তার কার্যক্রম দেখে মুগ্ধ হয়ে পড়েছেন এজন্যই তার পরিবার সম্পর্কে জানতেই আগ্রহী অনেকেই। এজন্য আমরা জুনায়েদ আহমেদ পলকের পরিবার থেকে নেওয়া নানা রকম তথ্যগুলো তুলে ধরলাম। জুনায়েদ আহমেদ পলক সম্ভ্রান্ত ইসলামিক পরিবারের একজন সন্তান। তার বাবার নাম ফয়েজ উদ্দিন এবং মাতার নাম জামিল আহমেদ।। এবং তার স্ত্রীর নাম আরিফা জেসমিন কণিকা। জুনায়েদ আহমেদ পলকের সর্বমোট তিনটি সন্তান রয়েছে। তার প্রথম সন্তান হলো অপূর্ণ জুনায়েদ, দ্বিতীয় সন্তান অর্জুন জুনায়েদ, এবং দ্বিতীয় সন্ধান হলেন অনিবার্ন জুনায়েদ।

জুনায়েদ আহমেদ পলকের রাজনৈতিক জীবন

ঝিনাইদ আহমেদ পলকের পিতা অর্থাৎ মরহুম ফয়জুদ্দিন একজন রাজনীতিবিদ ছিলেন তার পদানুসারে জুনায়েদ আহমেদ পলক ২০ বছর বয়সে আওয়ামী লীগ লীগের একজন সদস্য হিসেবে রাজনীতিতে যোগ দেন। ২৮ বছর বয়সে ২০০৮ সালের সিংড়া নির্বাচন এলাকা থেকে আওয়ামী লীগ লীগের মনোনয়ন পান তিনি। এবং ২০০৮ সাল থেকেই তিনি রাজনীতি সাথে সুন্দর ভাবে স্বয়ংসন্নভাবে জড়িত আছেন এবং সেখান থেকেই তিনি সাধারণ জনগণের সেবা করে আসছে।

জনাইদ আহমেদ পলকের সম্মাননা পুরস্কার

আমি অবশ্যই জেনে থাকবেন যে জুনায়েদ আহমেদ পলকের জন বাংলাদেশের মধ্যে শ্রেষ্ঠ প্রতিমন্ত্রী। তিনি তার দায়িত্বের পাশাপাশি সাধারণ জনগণের সেবা করতে নিয়োজিত। ২০১৬ সালের মার্চে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম জুনায়েদ আহমেদ পলকে ইয়াং গ্লোবাল লিডার ২০১৬ হিসেবে মনোনীত করে। ৪০ বছরের কম বয়সী তরুণদের নাম প্রকাশ করে ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফ্রম। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশ থেকে নেওয়া হয়েছে গ্লোবাল ইন্সটিটিউটের জুনায়েদ আহমেদ পলকে। তিনি ইয়ং বাংলা ওসিআরআইএর অন্যতম কান্ডারী। নীতি নির্ধারণ সংস্থার অপটিক্যাল এবং প্রকাশ করা হয় ডিজিটাল গভর্নমেন্ট বিশ্বের 100 তম প্রভাবশালী ব্যক্তিদের তালিকায় স্থান পেয়েছেন জুনায়েদ আহমেদ পলক।

আমরা আপনাদের সামনে সুন্দরভাবে জুনায়েদ আহমেদ পলক সম্পর্কে নানা রকম তথ্য সংগ্রহ করে তুলে ধরার চেষ্টা করলাম। আশা করি আপনারা জুনায়েদ আহমেদ পলক সম্পর্কে নানা রকম তথ্য গুলো সংগ্রহ করে উপকৃত হবেন। যদি আপনারা আমাদের প্রতিবেদনটি থেকে নানা রকম তথ্য সংগ্রহ করে উপকৃত হন অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন এবং প্রতিবেদনটি শেয়ার করবেন যারা জুনায়েদ আহমেদ সম্পর্কে জানতে আগ্রহী। এছাড়াও জুনায়েদ আহমেদ পলক অর্থাৎ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী সম্পর্কে যদি আপনাদের কোন মতামত থাকে অবশ্যই জানাতে পারেন আমরা আপনার মতামতের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব। আপনার মূল্যবান সময় দিয়ে সাথে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top